মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪
Homeআমেরিকাআটলান্টিক সিটিতে “বাংলাদেশ মেলা” যেন একখণ্ড বাংলাদেশ

আটলান্টিক সিটিতে “বাংলাদেশ মেলা” যেন একখণ্ড বাংলাদেশ

আটলান্টিক সিটি থেকে সুব্রত চৌধুরী-
বঙ্গোপসাগরের বুক চিরে জেগে ওঠা নতুন ভূখণ্ডের মতো আটলান্টিক মহাসাগর বিধৌত আটলান্টিক সিটির বুকে যেন গত এগারো জুলাই, মংগলবার জেগে উঠেছিল একখণ্ড মিনি বাংলাদেশ।
প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রাণপ্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব সাউথ জার্সির উদ্যোগে নিউজারসি অঙ্গরাজ্যের আটলান্টিক সিটির সেন্ড ক্যাসল স্টেডিয়াম এর সন্মুখস্থ সুবিশাল প্রান্তরে অনুষ্ঠিত হলো “বাংলাদেশ মেলা – ২০২৩”। মেলার হরেক আয়োজনের মধ্যে ছিল বীর মুক্তিযোদধাদের সন্মাননা, কৃতি ছাএ-ছাএী সম্বর্ধনা, গুণীজন সন্মাননা, আইভি লীগ কলেজে ভর্তির যোগ্যতা অর্জনকারী কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বৃত্তি প্রদান, দেশীয় দ্রব্য সামগ্রীর বিকিকিনি, দেশীয় খাবারের স্টল, রেফেল ড্র,সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

’বাংলাদেশ মেলা’র মূল আকর্ষণ ছিল বাংলাদেশের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী রবি চৌধুরীর মনোজ্ঞ সংগীত পরিবেশনা।

বাংলাদেশ মেলা”য় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন নিউ ইয়র্ক সিটি মেয়রের এশিয়া বিষয়ক উপদেষ্টা ফাহাদ সোলায়মান, সন্মানিত অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহ জে আলম, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ষ্টকটন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডঃ মোঃ শাহ আলম খান প্রমুখ । এছাড়া অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন নিউজারসি রাজ্যের সিনেটর ভিন্স পলিসতিনা , এসেম্বলিম্যান ডন গার্ডিয়ান, এসেম্বলিওম্যান ক্লারা সুইফট,আটলান্টিক সিটির মেয়র মার্টি স্মল, আটলান্টিক সিটি কাউন্সিল সভাপতি এরন রেনডলফ, কাউন্সিল সহসভাপতি কলিম শাহবাজ,কাউন্সিলম্যান আনজুম জিয়া, কাউন্সিলম্যান জেসি কারটজ, কাউন্সিলওম্যান এট লারজ মার্শাল স্টিফ্যানি, আটলানটিক কাউন্টির শেরিফ এরিক শেফলার, আটলানটিক সিটির পুলিশ প্রধান জেমস সারকোস, আটলান্টিক কাউন্টির ডেমোক্র্যাট কমিটির চেয়ারম্যান মাইক সুলেমান,আটলান্টিক কাউন্টির কমিশনার এট লারজ প্রার্থী হাবীব রেহমান, কাউন্সিলম্যান পদ প্রার্থী জেফ ডরসি সহ মূলধারার রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ ।

বিকেল থেকেই প্রবাসী বাংলাদেশিরা মেলায় সমবেত হতে থাকে।বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে বেড়ে ওঠা শিশু- কিশোরদের অংশগ্রহন ছিল উল্লেখযোগ্য, বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা হাতে, কপালে জাতীয় পতাকার ব্যান্ড বেঁধে, জাতীয় পতাকার রংয়ের পোশাক পরে তারা মেলায় যোগ দেয়।তাদের উৎসাহ, উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। সারাক্ষণ নেচে-গেয়ে তারা মেলা প্রান্তরকে মুখরিত করে রাখে।সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে হাজার হাজার প্রবাসী বাংলাদেশির উপস্থিতিতে এক সময় মেলা প্রাঙ্গণ জনারণ্যে পরিনত হয়।
বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশির উপস্থিতিতে বিকেল সাড়ে ছয়টায় বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর বেলুন উড়িয়ে ‘বাংলাদেশ মেলা’র শুভ উদ্বোধন করেন
ফাহাদ সোলায়মান।

এসময় বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব সাউথ জারসির সভাপতি জহিরুল ইসলাম বাবুল, সাধারন সম্পাদক জাকিরুল ইসলাম খোকা, ট্রাষ্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আব্দুর রফিক,বাংলাদেশ মেলার আহবায়ক আবু নসর, সদস্য সচিব এম রহমান বাবুল সহ বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব সাউথ জারসির অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশ মেলায় বিভিন্ন পর্যায়ে বক্তব্য রাখেন আবদুর রফিক, জহিরুল ইসলাম বাবুল, মোঃ জাকিরুল ইসলাম খোকা, আবু নসর, এম রহমান বাবুল প্রমুখ ।

বাংলাদেশ মেলায় লাইফ টাইম এচিভমেণ্ট পুরস্কার দেওয়া হয় বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব বিএএসজের ট্রাষ্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আব্দুর রফিককে।

বাংলাদেশ মেলা উপলক্ষে বিএএসজে সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহরিয়ার এর সম্পাদনায় প্রকাশিত স্মরণিকা “স্পন্দন” এর মোড়ক উন্মোচন করা হয় ।

বাংলাদেশ মেলার সংবাদ প্রচারের জন্য সংবাদ মাধ্যমের লোকজনের উপস্হিতি ছিল বেশ লক্ষ্যণীয় ।চ্যানেল আই, এটিএন বাংলা, বাংলা টেলিভিশন,টাইম টেলিভিশন,প্রথম আলো উওর আমেরিকা, বাংলাদেশ প্রতিদিন, সাপ্তাহিক ঠিকানা, রূপসী বাংলা সহ বিভিন্ন সংবাদপত্রের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশ মেলায় উপস্হিত ছিলেন।এছাড়া ইউটিবার, ব্লগাররাও ব্যস্ত সময় পার করেন।

বাংলাদেশ মেলায় বিভিন্ন স্টলে দেশীয় পণ্য ও খাবারের স্টলগুলোতে বিকিকিনি ছিল লক্ষ্যণীয়।বাংলাদেশ মেলার অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন প্রবাসের জনপ্রিয় উপস্থাপক এ বুলবুল হাসান।

বাংলাদেশ মেলায় বিএএসজে সভাপতি জহিরুল ইসলাম বাবুলকে কমিউনিটি সেবায় অনন্য ভূমিকার জন্য কংগ্রেসম্যান জেফ ভেন ড্রিউর পক্ষ থেকে কংগ্রেসনাল প্রোকলেমেশন প্রদান করা হয়।এছাড়া মূলধারার অন্যান্য নেতৃবৃনদও বিএএসজেকে সাইটেশন প্রদান করেন।

বাংলাদেশ মেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আরো সংগীত পরিবেশন করেন প্রবাসের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী রিজিয়া

পারভীন, বিন্দু কণা প্রমুখ । তারা বিভিন্ন ধরনের জনপ্রিয় গান পরিবেশন করে শ্রোতাদের বিমোহিত করে রাখে। বাংলাদেশ মেলায় উপস্থিত হাজার হাজার শ্রোতা শিল্পীদের গানের সাথে নেচে-গেয়ে আনন্দ উপভোগ করেন।

বাংলাদেশ মেলার ব্যতিক্রমী আয়োজন ছিল ‘এলইডি রোবট’ এর অংশগ্রহন। মেলার দর্শকেরা তাদের সাথে নেচে গেয়ে আনন্দ উপভোগ করে।

রেফেল ড্রর মাধ্যমে বাংলাদেশ মেলার সমাপ্তি ঘটে।

মেলায় আগত দর্শকরা বরাবরের মতো নান্দনিক মেলা উপহার দেওয়ার জন্য বিএএসজে কতৃপক্ষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -spot_img

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment - spot_img