রবিবার, অক্টোবর ২, ২০২২
Homeপ্রধান সংবাদদক্ষ শ্রমশক্তি বাড়াতে দেশে নির্মাণ করা হচ্ছে আরো ১শ কারিগরি স্কুল ও...

দক্ষ শ্রমশক্তি বাড়াতে দেশে নির্মাণ করা হচ্ছে আরো ১শ কারিগরি স্কুল ও কলেজ

দক্ষ শ্রমশক্তি বাড়াতে দেশে আরো ১শ কারিগরি স্কুল ও কলেজ স্থাপন করতে যাচ্ছে সরকার। মূলত দেশ-বিদেশে শ্রমবাজারে চাকরির সুযোগ বাড়াতে যুব সমাজকে দক্ষ করতেই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ওই লক্ষ্যে দেশের ১০০টি উপজেলায় বৃত্তিমূলক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ সুবিধা সম্প্রসারণে অবকাঠামোও স্থাপন করা হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ এ উদ্যোগ নিয়েছে। সেজন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় ‘১০০টি উপজেলায় একটি করে টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ স্থাপন’ শীর্ষক প্রকল্প নিয়েছে। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ‘১০০টি উপজেলায় একটি করে টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ স্থাপন’ শীর্ষক প্রকল্পটি একাধিকবার সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে। ওসব সংশোধনীতে ব্যয়ও বেড়েছে। ২০১৪ সালে ৯২৪ কোটি ৩ লাখ টাকা ব্যয়ে নেয়া প্রকল্পটি বাস্তবায়নে সর্বশেষ ২০২৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর মেয়াদ ধার্য করে ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৫২০ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। তার মধ্যে ২০১৮ এবং ২০২১ সালে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের সময় নির্ধারণ ও ব্যয় বাড়ানোর প্রস্তাব করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সর্বশেষ ১০ মে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) সংশোধিত প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়। প্রকল্পটি চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (আরএডিপি) চলমান প্রকল্প তালিকায় ৪৮৮ কোটি ৪২ লাখ টাকা বরাদ্দসহ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।
সূত্র জানায়, সরকারের ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় ৪র্থ শিল্প বিপ্লব মোকাবেলায় দক্ষ ও প্রশিক্ষিত মানবসম্পদ উন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। প্রস্তাবিত প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের কারিগরি শিক্ষা গ্রহণের পরিবেশ উন্নত হবে। পাশাপাশি আরো বেশি ছাত্র-ছাত্রী কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ পাবে এবং প্রশিক্ষিত মানবসম্পদের উন্নয়ন ঘটবে। যা সরকারের ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। প্রকল্পের আওতায় নির্দিষ্ট উপজেলাগুলোয় ১৬২ দশমিক ১২ একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে এবং ওসব জমির উন্নয়ন করা হবে। কেনা হবে প্রকৌশল সরঞ্জাম ও আসবাবপত্র। ৬ দশমিক ৮৫ লাখ বর্গমিটার অ্যাকাডেমিক কাম প্রশাসনিক ভবন, ওয়ার্কশপ ভবন ও সার্ভিস সেন্টার নির্মাণ করা হবে। তাছাড়া ওসব প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তার স্বার্থে ৪৯ হাজার ৬৫০ রানিং মিটার সীমানা প্রাচীর করা হবে, ১৯ হাজার ১৫০ রানিং মিটার অভ্যন্তরীণ রাস্তা ও ১০০টি স্কুল কলেজের জন্য ১০০টি জলাধারসহ পানি সরবরাহ ব্যবস্থা নির্মাণ করা হবে।
সূত্র আরো জানায়, ভূমি অধিগ্রহণে বিলম্ব, অনাবাসিক ভবন, ভূমি অধিগ্রহণ, প্রকৌশল ও অন্যান্য সরঞ্জাম, সেমিনার কনফারেন্স, আউটসোর্সিংসহ কতিপয় খাতে ব্যয় বৃদ্ধি, যানবাহন ক্রয়, পরামর্শক ব্যয়, কাঁচামাল ও খুচরা যন্ত্রাংশ, বইপত্র-সাময়িকী ইত্যাদি খাতে ব্যয় কমানো এবং প্রকল্পের বাস্তবায়ন মেয়াদ ৩ বছর বাড়ানোর জন্যই প্রকল্পটি সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছিল।
এদিকে এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. এম শামসুল আলম জানিয়েছেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে দেশের পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের কারিগরি শিক্ষা গ্রহণের পরিবেশ উন্নত হবে। অধিক সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ পাবে। প্রশিক্ষিত মানবসম্পদ বিদেশে রফতানির মাধ্যমে অধিক বৈদেশিক মুদ্রাও আসবে।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -spot_img

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment - spot_img