সোমবার, জানুয়ারি ৩০, ২০২৩
Homeপ্রধান সংবাদনির্বাচনে কাকে কত টাকা দেবে সে হিসাব বিএনপি করে ফেলেছে: কাদের

নির্বাচনে কাকে কত টাকা দেবে সে হিসাব বিএনপি করে ফেলেছে: কাদের

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে কাকে কত টাকা-পয়সা দেবে বিএনপি সে হিসাব করে ফেলেছে বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া হবে না (নির্বাচনে অংশ নেবে না) এটা তারা বলছেন, বলুক। আমার তো মনে হয় তারা শেষ পর্যন্ত যত কিছুই বলুক নির্বাচনের প্রস্তুতিও নিয়ে ফেলেছে। কোথায় কত টাকা-পয়সা দেবে সে হিসাবও করে ফেলেছে। সবকিছুর খোঁজখবর তো আমাদের কাছে আছে। টাকার উৎসও আমরা জানি। ইলেকশনে কাকে কত টাকা-পয়সা দেবে সেগুলোও তো মোটামুটি একটা হিসাব তাদের হয়ে গেছে। আমার বিশ্বাস, তারা নির্বাচনে আসবে। গতকাল বুধবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি বলছে সরকারের পতন না ঘটিয়ে ঘরে ফিরবে না- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির আন্দোলনের মূল লক্ষ্য সংকট থেকে উত্তরণ নয়। তাদের লক্ষ্য রাজনৈতিক ক্ষমতার পরিবর্তন। কেউ বলেন ১০ ডিসেম্বর হলুদ কার্ড, কেউ বলেন লাল কার্ড দেখাতে হবে। বিএনপিকে নির্বাচনে এনে সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে সরকার চাপ বোধ করছে কি না- এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নির্বাচনে আসবে এটা আমরা জানি। তাদের বাইরে আন্দোলন ও ভেতরে প্রস্তুতি। ওই খবর না রাখলে আমরা সরকারে আছি কীভাবে? আমাদের খোঁজখবর আছে। আমরা চাই বিএনপি আসুক। একটা বড় দল, নির্বাচনটা প্রতিযোগিতামূলক হোক। এটা আমরা মনেপ্রাণে চাই। কিন্তু জোর করে তো আনতে পারবো না। তিনি বলেন, আমরা তো কথায় ‘খেলা হবে’ বলছি। লাঠিসোটাও নেইনি মারামারিও করিনি। ওইসব বাজে মতলব আমাদের নেই। কিন্তু খালেদা জিয়া নিজে, মিডিয়ার সবাই জানে চট্টগ্রামের শাহাদাত হোসেনকে বলেছিলেন, আগুন লাগাও, আগুন সন্ত্রাস করো। বোমা মারো। বলেনি? অডিও আছে। সেই ভয়টা তো আমাদের আছে। তিনি আরও বলেন, এখন (বিএনপি) আস্তে আস্তে সমাবেশের নামে তৈরি হচ্ছে। পরে আসল খেলা দেখাবে- ‘আগুন খেলা’। আমাদের খেলা আগুন খেলা নয়। আগুন নিয়ে খেলতে দেওয়া হবে না। সেটাকে আমরা প্রতিরোধ করবো, ইনশাআল্লাহ। দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা থাকলে অর্থেনৈতিক সংকট উত্তরণ কঠিন হবে কি না- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, কঠিন তো হবেই। সামনে দুর্ভিক্ষের মতো পরিস্থিতি হতে পারে। বিএনপির কর্মসূচিতে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়- এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেতাদের বক্তব্য ও বিক্ষুব্ধ স্লোগান দেখে তারা (পরিবহন মালিক-শ্রমিক) যদি ভয় পায়…।’ আওয়ামী লীগের নেতারাই তো ধর্মঘট ডাকে- এ বিষয়ে তিনি বলেন, কোথায় আওয়ামী লীগ? শাজাহান খান আওয়ামী লীগ, মহাসচিব ওসমান আলী বাসদ, রাঙ্গা জাতীয় পার্টি, জেনারেল সেক্রেটারি এনায়েত উল্যাহ আওয়ামী লীগ। বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশের আগে বরিশালে দোকানপাটও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে- এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা কারা করছে আমি ঠিক জানি না। দোকানপাট বন্ধ হলে এটা ঠিক নয়। আমরা লক্ষ্য করছি, কোথায় কী হচ্ছে। আমাদের পক্ষ থেকে কোনো বাড়াবাড়ি হলে আমরা সেটা শোধরাতে চাই। আপনি সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন বক্তব্যে বলেছেন ‘খেলা হবে’। আপনি বলছেন এ খেলা দুর্নীতি, আগুন সন্ত্রাস ও ভোটচুরির বিরুদ্ধে। বিএনপি এরইমধ্যে সাফ জানিয়ে দিয়েছে, তারা তত্ত্বাবধায়ক সরকার না হলে নির্বাচনে যাবে না। সেক্ষেত্রে খেলাটা সীমাবদ্ধ হয়ে যাচ্ছে রাজপথে। তো রাজপথে আপনাদের কী খেলা হবে, রাজপথের খেলার কী ধরন হতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা একটা পলিটিক্যাল হিউমার (রাজনৈতিক হাস্যরস), এটা যে পাবলিক একসেপ্ট করেছে…ওই ফুল বেচে বাচ্চা, আমার গাড়ি দেখেই বলে খেলা হবে…এটা মানুষ একসেপ্ট করে ফেলেছে। তিনি বলেন, খেলা হবে কথাটা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে সবচেয়ে জনপ্রিয় স্লোগান ছিল। খেলা হবে মমতা ব্যানার্জি বলছেন,।নরেন্দ্র মোদীও বক্তৃতার শুরুতে বলেছেন খেলা হবে, সে একটু হিন্দি টোনে। কিন্তু সেখানে পুরো ইলেকশনটি ডমিনেট করেছে খেলা হবে। আমরা যে স্লোগানটা দিচ্ছি সেটা বাংলাদেশে অতীতের দুঃশাসন, দুর্নীতি, লুটপাট, হওয়া ভবন, খুনিদের পুরস্কৃত করা- এসবের বিরুদ্ধে আমরা বলছি খেলা হবে। এটা একটা মোরাল পোস্টারের স্লোগান এবং সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধেও আমাদের একটা অবস্থান আছে। এ কারণেও বলা হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, আমরা একসেঙ্গে ১০০ সেতু উদ্বোধন করেছি। একসঙ্গে ১০০ সেতু উদ্বোধনের রেকর্ড নেই। আগামী ১২ নভেম্বর আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে উদ্বোধন। এটি আব্দুল্লাহপুর থেকে শুরু হয়ে বাইপাইল ইপিজেড পর্যন্ত যাবে। নিচে চার লেন উপরে এলিভেটড হবে। ওইদিন প্রকল্পের গ্রাউন্ড ব্রেকিং হবে। তিনি বলেন, আগামী ২৬ নভেম্বর চট্টগ্রামে কর্ণফুলী টানেলের একটা টিউব ভার্চুয়ালি পরিদর্শন করবেন প্রধানমন্ত্রী। ডিসেম্বরের শেষ বা জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে পুরো কাজ শেষ করে এর উদ্বোধন করা হবে। ডিসেম্বরে আমরা আগারগাঁও পর্যন্ত এমআরটি লাইন-৬ (মেট্রোরেল) এর উদ্বোধন করবো। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমাদের দলের জাতীয় কাউন্সিলের তারিখ হয়ে গেছে, ২৪ ডিসেম্বর। একদিনেই হবে। সকালে প্রথম অধিদবেশন, বিকেলে কাউন্সিল অধিবেশন, সন্ধ্যার পর একটা কালচারাল প্রোগ্রাম আছে। এবার জাঁকজমক ও সাজসজ্জাটা একেবারেই কম হবে। আমাদের সামনে যে সংকট এসেছে, সে কারণেই আমরা কৃচ্ছতা সাধন করতে চাই। মেয়াদোত্তীর্ণ জেলাগুলোর সম্মেলন জাতীয় সম্মেলনের আগে শেষ করা হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সাব-কমিটি গঠনতন্ত্র ও ঘোষণাপত্র যুগোপযোগী করবে।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -spot_img

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment - spot_img