শনিবার, এপ্রিল ২০, ২০২৪
Homeপ্রধান সংবাদবাংলাদেশে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারে উদ্বেগ জাতিসংঘ মানবাধিকার হাইকমিশনারের

বাংলাদেশে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারে উদ্বেগ জাতিসংঘ মানবাধিকার হাইকমিশনারের

আসন্ন লোকসভা নির্বাচন নিয়ে সোমবার জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার ভলকার তুর্কের মন্তব্যে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে ভারত।

বিবিসি জানায়, জেনেভায় মানবাধিকার কাউন্সিলের ৫৫তম অধিবেশন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার ভলকার তুর্ক সোমবার তার বিবৃতিতে রাশিয়া, ইরান, সেনেগাল, ঘানা, বাংলাদেশ, পাকিস্তানসহ অনেক দেশের নির্বাচন নিয়ে কথা বলেন।

তিনি বাংলাদেশে বিরোধী দলের হাজার হাজার প্রার্থী ও নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তুর্ক বলেন, “আমি যে
কোনো ধরনের রাজনৈতিক সহিংসতার নিন্দা করি এবং সমস্ত মামলা দ্রুত পর্যালোচনার আহ্বান জানাই।”

ভারত প্রসঙ্গে ভলকার তুর্ক বলেন, “৯৬ কোটি ভোটার নিয়ে ভারতের আসন্ন নির্বাচন অনন্য। এই দেশের ধর্মনিরপেক্ষতা, গণতান্ত্রিক ঐতিহ্য এবং এর মহান বৈচিত্র্য প্রশংসনীয়। তবে কিছু উদ্বেগ রয়েছে।

ভরকার তুর্ক ভারতের নাগরিক অধিকারের ওপর ‘ক্রমবর্ধমান বিধিনিষেধ’ আরোপ সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। এর পাশাপাশি উদ্বেগ জানিয়েছেন মানবাধিকার কর্মী, সাংবাদিক এবং সমালোচকদের ‘নিশানা’ করার বিষয়ে, এবং সংখ্যালঘুদের, বিশেষত মুসলমানদের বিরুদ্ধে ‘ঘৃণাযুক্ত মন্তব্য ও বৈষম্যমূলক আচরণ’ সম্পর্কেও।

নির্বাচনের আগে সকলের ‘অর্থবহ’ অংশগ্রহণের জন্য উন্মুক্ত পরিবেশ থাকা অত্যন্ত জরুরি, এই বিষয়টি বিশেষভাবে উল্লেখ করেছেন তিনি।

ওই অধিবেশনে ভারতের পক্ষ থেকে বক্তব্য পেশ করার সময় জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি অরিন্দম বাগচী ভলকার তুর্কের মন্তব্যকে অনাবশ্যক বলে অভিহিত করে জানিয়েছেন যে তার (ভলকার তুর্কের) বক্তব্য বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের বাস্তব ছবির প্রতিফলন নয়।

অরিন্দম বাগচী বলেন, “যে কোনো গণতন্ত্রে তর্ক-বিতর্ক হওয়াটাই স্বাভাবিক। উল্লেখযোগ্য পদে থাকা কর্মকর্তারা যে তাদের সিদ্ধান্তগুলোকে কোনো প্রোপাগান্ডা দ্বারা প্রভাবিত হতে দেবেন না, সেটাও কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ। বহুত্ববাদ, বৈচিত্র্য, অন্তর্ভুক্তি আমাদের গণতন্ত্রের মূল নীতির অংশ এবং সাংবিধানিক মূল্যবোধের মধ্যেও তা নিহিত রয়েছে।”

“এর জন্য শক্তিশালী বিচার বিভাগের পাশাপাশি স্বাধীন প্রতিষ্ঠানও রয়েছে যা সকলের অধিকার রক্ষা করে। এই মূল্যবোধগুলির প্রতি এ দেশের মনোভাব সেই চিন্তাধারা থেকে আসে যেটা বলছে সমগ্র পৃথিবীই যে একটা পরিবার।”

“আমাদের এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই যে ভারতের জনগণ এমন একটি সরকার নির্বাচন করতে স্বাধীনভাবে তাদের ভোট প্রয়োগ করবে যে সরকার তাদের (ভারতীয়দের) আশা আকাঙ্খার কথা বলবে। অতীতেও এমনটাই হয়ে এসেছে।”

বাংলাদেশ এবং পাকিস্তানসহ ভারতের প্রতিবেশী দেশগুলিতে সদ্য অনুষ্ঠিত নির্বাচনের বিষয়টিও উত্থাপন করেছেন ভলকার তুর্ক।

পাকিস্তানে গত মাসে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের কথা বলতে গিয়ে বিপুল সংখ্যক ভোটারের অংশগ্রহণের বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, সদ্য অনুষ্ঠিত নির্বাচন প্রমাণ করে পাকিস্তানের জনগণ গণতন্ত্রে হস্তক্ষেপের অবসান চান।

ভলকার তুর্ক বলেন, “আমরা পাকিস্তানের নতুন সরকারকে বিরোধী প্রার্থী, সাংবাদিক, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সদস্য এবং অন্যদের নির্বিচারে আটক বন্ধ করার আহ্বান জানাচ্ছি। কয়েক সপ্তাহ ধরে তাদের সম্পর্কে তথ্য না পাওয়ার মতো ঘটনাও বন্ধ হওয়া উচিত।”

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -spot_img

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment - spot_img