মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪
Homeপ্রধান সংবাদব্যাংক ঋণ নিয়ে শোধ করতে হচ্ছে সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল

ব্যাংক ঋণ নিয়ে শোধ করতে হচ্ছে সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল

সাধারণ মানুষের সবচেয়ে নিরাপদ সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ উল্টোপথে চলছে। তাতে সঞ্চয়পত্র বিক্রি তলানিতে ঠেকেছে। ফলে সঞ্চয়পত্র বিক্রির চেয়ে সুদ-আসল পরিশোধেই বেশি টাকা চলে যাচ্ছে। তাতে উন্নয়ন কর্মকান্ডসহ অন্যান্য খরচ মেটাতে এই খাত থেকে কোনো ঋণ নিতে পারছে না সরকার। উল্টো ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে আগে বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল পরিশোধ করতে হচ্ছে। এতে বেড়ে যাচ্ছে সরকারের ব্যাংকঋণের পরিমাণ। অথচ বাজেট ঘাটতি মেটাতে সরকার চলতি অর্থবছর সঞ্চয়পত্র থেকে ৩৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে। জাতীয় সঞ্চয়পত্র অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, চলতি অর্থবছর ২০২২-২৩ এর প্রথম ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমেছে। আর বিক্রির পরিমাণ এত তলানিতে যে, বিক্রির টাকা দিয়ে গ্রাহকদের আগে বিনিয়োগ করা সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল পরিশোধ করা সম্ভব হয়নি। এমনকি বাজেট ঘাটতি মেটাতে সঞ্চয়পত্র থেকে ৩৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার যে লক্ষ্যমাত্রা ছিল তাও পূরণ হয়নি। এরমধ্যে প্রথম ছয় মাসে এ খাত থেকে কোনো ঋণ পায়নি সরকার। ওই ৯ মাসে ৬২ হাজার ৬৫৭ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। আর সরকার এই খাতের মোট পরিশোধ করেছে ৬৬ হাজার ৮১৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ ৯ মাসে আরো ৪ হাজার ১৬১ কোটি টাকা সরকারি কোষাগার বা ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে অতিরিক্ত পরিশোধ করতে হয়েছে। সূত্র জানায়, বর্তমানে সঞ্চয়পত্রে কিছুটা কড়াকড়ি রয়েছে। সুদহারও কমিয়েছে সরকার। এসব কারণে সঞ্চয়পত্র বিক্রিতে ধস নেমেছে। গত মার্চ মাসে মোট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে ৬ হাজার ৭৯৫ কোটি টাকার। তবে সরকারকে মূল ও মুনাফা বাবদ পরিশোধ করতে হয়েছে ৭ হাজার ৪৪৭ কোটি টাকা। অর্থাৎ সঞ্চয়পত্র বিক্রির চেয়ে পরিশোধ হয়েছে ৬৫২ কোটি টাকার বেশি। গত বছরের একই সময়ে (২০২২ সালের মার্চ) নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রির পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৮১৫ কোটি টাকা। বিদ্যমান অবস্থায় উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন ব্যয় মেটাতে ব্যাংক ব্যবস্থা নির্ভর হয়েছে সরকার। সেজন্য ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়া বাড়িয়েছে। এরইমধ্যে নেয়া হয়েছে সাড়ে ৫২ হাজার কোটি টাকার ঋণ। কারণ গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে সঞ্চয়পত্র বিক্রির চেয়ে ভাঙানোর পরিমাণ বেশি হয়েছে। প্রথম মাস জানুয়ারিতে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি ছিল ৩৭ কোটি ৪৩ লাখ টাকা, ফেব্রæয়ারিতে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি ঋণাত্মক ৪৪০ কোটি টাকা। গত ডিসেম্বরে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি ১ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা ঋণাত্মক (নেগেটিভ) ছিল, নভেম্বরে নিট বিক্রি ঋণাত্মক ছিল ৯৮৩ কোটি ৩২ লাখ টাকা, অক্টোবরে নিট বিক্রি ৯৬৩ কোটি ১৬ লাখ টাকা, এবং সেপ্টেম্বরে নিট বিক্রি ঋণাত্মক ছিল ৭০ কোটি ৬৩ হাজার টাকা। তবে চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে সঞ্চয়পত্রের নিট বিনিয়োগের পরিমাণ কিছুটা ইতিবাচক ছিল। এরমধ্যে গত আগস্ট মাসে সঞ্চয়পত্রের নিট বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৮ কোটি টাকা। আর জুলাইয়ে ৩৯৩ কোটি টাকা ছিল। তাছাড়া গত অর্থবছরেও এ খাত থেকে কম ঋণ পেয়েছিল সরকার। ২০২১-২২ অর্থবছরে ৩২ হাজার কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে নিট ঋণ আসে ১৯ হাজার ৯১৫ কোটি টাকা। অথচ করোনাকালেও ২০২০-২১ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্রের নিট বিনিয়োগ হয়েছিল প্রায় ৪২ হাজার কোটি টাকা। সূত্র আরো জানায়, বিদ্যমান অবস্থায় সঞ্চয়পত্রের পরিবর্তে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ঋণ নেওয়া বাড়িয়েছে সরকার। চলতি অর্থবছরে ব্যাংক থেকে মোট ১ লাখ ৬ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ না পাওয়ায়, ব্যাংক থেকে সরকারের লক্ষ্যমাত্রার বেশি ঋণ নেয়া লাগতে পারে। ব্যাংকে তারল্য সঙ্কট থাকায় অভ্যন্তরীণ ঋণের পুরোটাই এখন যোগান দিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। চলতি অর্থবছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) সরকার কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছে ৫০ হাজার ৩৮০ কোটি টাকার বেশি, আর বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে নেওয়া ঋণের পরিমাণ ১ হাজার ৯৮০ কোটি টাকা। ওই সময়ে সরকারের নিট ব্যাংক ঋণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫২ হাজার ৩৬০ কোটি টাকা। গত অর্থবছরেও ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে বড় অঙ্কের ঋণ ছিল। গত ২০২১-২০২২ অর্থবছরে সরকারের ব্যাংক ঋণ নেয়ার পরিমাণ ছিল ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -spot_img

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment - spot_img